প্রচ্ছদ

গোলাপগঞ্জের বিএনপির নেতা মুরাদ ও উজ্জল সহ গ্রেপ্তার ৬ ছবি তুলতে গিয়ে পুলিশের হাতে সাংবাদিক লাঞ্ছিত

২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:১১

শুভ প্রতিদিন

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি :
সিলেটের গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণে বিএনপির লিফলেট বিতরণ থেকে উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান নোমান উদ্দিন মুরাদক ও উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জ্বলসহ ৬ বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে গোলাপগঞ্জ মডেল থানা পুলিশ। রোববার (২২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঢাকাদক্ষিণ বাজারের লঞ্চঘরের সামন থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। এ ঘটনার পর তাৎক্ষণিক ঢাকাদক্ষিণ বাজারে বিএনপি নেতাকর্মীরা প্রায় ১ঘন্টা ঢাকাদক্ষিণ-গোলাপগজ্জ সড়ক অবরোধ করে রাখে।

এসময় ছবি তুলতে গিয়ে পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত হয়েছেন গোলাপগঞ্জ অনলাইন প্রেসক্লাবের সহ-সাধারণ সম্পাদক, দৈনিক আজকের খবরের উপজেলা প্রতিনিধি ফখরুল ইসলাম সাকিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আগামী ২৪ তারিখ জেলা বিএনপির সমাবেশ সফলের লক্ষে বিএনপি নেতাকর্মীরা রোববার সন্ধ্যায় ঢাকাদক্ষিণ বাজারে লিফলেট বিতরণ করছিলেন। এসময় গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ লিফলেট বিতরণ থেকে উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান, উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নোমান উদ্দিন মুরাদ ও উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মনিরুজ্জামান উজ্জ্বলসহ ৬ বিএনপি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে থানায় নিয়ে আসে। তবে কি কারণে তাদেত গ্রেপ্তার করা হয়েছে তা পুলিশ জানায়নি।

এদিকে ছবি তুলতে গিয়ে পুলিশের হাতে লাঞ্ছিত সাংবাদিক ফখরুল ইসলাম সাকিল বলেন, আমি ছবি তুলতে গেলে আমায় পুলিশের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া হয়। পরে পরিচয়পত্র দেখানোর পরেও কয়েকজন পুলিশ কেন ছবি তুলেছি বলে আমায় হাতে পায়ে লাটি দিয়ে কয়েকটা আঘাত করে।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমানের মিজানের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ কর হলে তিনি বিএনপি নেতা নোমান উদ্দিন মুরাদ ও উজ্জ্বল আহমদেত গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বললেও বাকি ৪জনের পরিচয় পরে জানানো হবে বলে জানান। এদিকে সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করে বলেন, আমার জানা মতে এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি। তবে ভীড়ের মধ্যে এমন হলে অনিশ্চা শর্তে হয়েছে বলেও জানান তিনি।