প্রচ্ছদ

শাবির ভর্তি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের সহযোগিতায় হাত বাড়িয়েছেন সিলেটবাসী

২৬ অক্টোবর ২০১৯, ১৬:১৪

মবরুর আহমদ সাজু

ভর্তি পরীক্ষায় বিনা ভাড়ায় ২০টি বাস দেবে সিলেট চেম্বার
থাকছে মোটর সাইকেল সার্ভিস,
পরীক্ষা চলাকালে রাজনৈতিক কর্মকান্ডে নিষেধাজ্ঞা
সিলেটের তরুণদের অনন্য সেবা,প্রতি আসনে লড়বে ৪২ জন শিক্ষার্থী

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের ¯œাতক ১ম বর্ষ ১ম সেমিস্টারের ভর্তি পরীক্ষা আজ শনিবার অনুষ্ঠিত হবে। এবার পরীক্ষার্থীদের জন্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন সিলেটের মানুষজন। এবারই প্রথম ভর্তি পরীক্ষার্থীদের পরিবহনের জন্য বিনা ভাড়ায় ২০টি বাস দিয়েছে সিলেট চেম্বার। পাশাপাশি তরুণদের দুটি সংগঠন বিনা ভাড়ায় মোটরসাইকেল দিয়ে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে পৌঁছে দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। তাদের ১৫০টি মোটরসাইকেলের মাধ্যমে বিনামূল্যে পরীক্ষার্থীদের সেবা দেবে বুস্টার্স ও সিলেট বাইকিং কমিউনিটি (এসবিসি)। সিলেট নগরীর ১০টি পয়েন্টে থাকবে এসব মোটরসাইকেল।

এছাড়া যেসব শিক্ষার্থী হোটেলে রুম ভাড়া পাননি তাদের নিজ নিজ বাসাবাড়িতে ৩/৪ জন করে থাকতে পারবেন বলে ফেসবুক স্ট্যাটাসে বাসার ঠিকানাস ঘোষণা দিয়েছেন। সিলেটের মানুষের এই সহযোগিতাকে অভূতপূর্ব বলে অবিহিত করেছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. ফরিদ উদ্দিন আহমদ। তিনি বলেন, আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যায়ের ভর্তি পরীক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট ছিলাম। তবে সিলেটের মতো এত সহযোগিতা আর কোথাও পাইনি। সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন সংগঠনের সহযোগিতায় আমি অবিভূত।

এবছর সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘এ’ ইউনিট ও বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটে সর্বমোট ১ হাজার ৬০৩ আসনের বিপরীতে ৭০ হাজার ৫৫১ জন শিক্ষার্থী আবেদন করেছে। এ বছর প্রতি আসনে লড়বে ৪২ জন। এবার সিলেট নগরের ৪৬টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

‘এ’ ইউনিটের ৬১৩টি আসনের বিপরীতে ২৭ হাজার ৩৫ জন, ‘বি-১’ ইউনিটের ৯৯০টি আসনের বিপরীতে ৪০ হাজার ৫৫৩ জন ও ‘বি-২’ ইউনিটে ৩০ আসনের বিপরীতে ২ হাজার ৯৬৩ জন শিক্ষার্থী আবেদন করেছে। এছাড়া সাধারণ আসনের বাইরে ১০০টি আসন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আদিবাসী, পোষ্য, বিকেএসপি, প্রতিবন্ধী ও চা-শ্রমিক সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। আজ সকাল সাড়ে ৯টায় ৩২টি কেন্দ্রে এ ইউনিটের এবং দুপুর আড়াইটায় ৪৬টি কেন্দ্রে বি ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। ভর্তি পরীক্ষার সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য ধফসরংংরড়হ.ংঁংঃ.বফঁ ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে। এছাড়া ++৮৮০১৫ ৫৫৫৫৫০০১-০০৪ নম্বরে যোগাযোগ করা যাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও ভর্তি কমিটির শৃঙ্খলা উপ-কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক জহীর উদ্দিন আহমদ জানান, ভর্তি পরীক্ষা সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সবোর্চ্চ সর্তক অবস্থায় রয়েছে। তিনি অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদেরকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানো মিথ্যা তথ্যে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানান।

এদিকে পরীক্ষা চলাকালে ক্যাম্পাসে কোনো ধরণের রাজনৈতিক কর্মকান্ড, সভা-সমাবেশ ও মিছিলে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে প্রক্টরিয়াল বডি। কোনো ধরনের ব্যানার, পোস্টার, লিফলেট, বুকলেট ও বোর্ড কোথাও লাগানো ও বিতরণ না করার পাশাপাশি বর্তমানে বিভিন্ন সংগঠনের যেসব বুথ রয়েছে তা ভর্তি পরীক্ষার দিন পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিকে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবির) ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে আগত শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কমাতে বিনা ভাড়ায় চলাচলের জন্য ২০টি বাস দিবে সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। এ তথ্য জানান সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আবু তাহের মো. শোয়েব। এদিকে প্রতিবছরই ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা পরিবহন ও আবাসন সংকটে ভোগেন। এবছরও পরিবহন সংকটের পাশাপাশি বিভিন্ন হোটেল থাকার জায়গার সংকট দেখা দিয়েছে। এছাড়া অতীত অভিজ্ঞতা থেকে পরীক্ষার দিন পরীক্ষার্থীদের পরিবহন শ্রমিক কর্তৃক হয়রানি যাতে এ বছর না হয়, তার জন্য ১৩ দফা নির্দেশনা দিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ। পাশাপাশি ফিরতি গাড়ির টিকিটেও অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ প্রতিবারই ওঠে। এবার শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের ভোগান্তি এড়াতে নানামুখি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। থাকছে মোটর সাইকেল সার্ভিস,‘সিলেট বাইকিং কমিউনিটি (এসবিসি)’ ও ‘বুস্টার্স’ নামের দুইটি সংগঠন এই সেবা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

প্রশাসনের হিসেব মতে এবছর শিক্ষার্থী ও অভিভাবক মিলে সিলেট আগতদের সংখ্যা ২ লাখ ছাড়িয়ে যাবে। ভর্তি পরীক্ষা উপলক্ষ্যে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী ক্যাম্পাসে এবং সিলেট শহরে আসতে শুরু করেছে। তবে সিলেট শহরের হোটেল ও সিএনজিচালিত অটোরিকশাচালকদের অতিরিক্ত ভাড়া দাবির সিন্ডিকেটের কারণে হয়রানির শিকার হচ্ছেন ভর্তিচ্ছু ও অভিভাবকরা। প্রতিবছরই ভর্তি পরীক্ষার সময়টাকে উৎসবের মতো মনে করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নানা ধরনের সহযোগিতা করে থাকেন তারা। হল ও মেসে নিজেদের সিট ছেড়ে দেন ভর্তিচ্ছুকদের জন্য। পরীক্ষার আগের রাতে নিজেরা আড্ডাবাজি কিংবা রাত জেগে ভর্তিচ্ছুকদের থাকার ব্যবস্থা করে দেন। এছাড়া দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শিক্ষার্থীদের স্ব স্ব জেলা কিংবা উপজেলাভিত্তিক সংগঠনগুলোও নানা ধরনের সহযোগিতা করে থাকে। প্রতিবছরই যাতায়াতের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের ভাড়া বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। ১০ টাকার সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাড়া ক্ষেত্রবিশেষে ১০০ টাকা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে। এছাড়া ১০/১৫ দিন আগ থেকে হোটেল বুকিং হয়ে যাওয়ার কারণে অনেকে আবাসন সমস্যার মুখোমুখি হন। এ সুযোগে কিছু হোটেল মালিক দ্বিগুন কিংবা তিনগুন ভাড়া আদায়ের ইতিহাসও রয়েছে। তবে পরিবহন শ্রমিক কিংবা হোটেল কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়টি অস্বীকার করে আসছেন।

এ বিষয়ে শাবিপ্রবি প্রশাসনের ভর্তি পরীক্ষার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর আনোয়ার হোসাইন বলেন, শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ হাজার ৭০৩টি আসনের বিপরীতে এবার আবেদন করেছে ৭০ হাজার ৫৫৪ জন শিক্ষার্থী। সে হিসেবে প্রতি আসনের বিপরীতে ৪১ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবেন। শাবিপ্রবি প্রশাসনের ভর্তি পরীক্ষার সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

এদিকে সিলেট সিএনজিচালিত অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, পরিবহনের ক্ষেত্রে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় কিংবা শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের সাথে যাতে কোনো ধরনের অসদাচরণ না হয় সেজন্য একাধিক টিম গঠন করেছে সিএনজিচালিত অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়ন। পরীক্ষার দিন সকালে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থান ও পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর আশপাশে নজরদারি করবে তারা।

মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) মো. জেদান আল মুসা বলেন, পরীক্ষার্থীদের হয়রানি বন্ধ ও ভাড়া নৈরাজ্য প্রতিরোধসহ ১৩ দফা নির্দেশনা জারি করেছে সিলেট মহানগর পুলিশ। পাশাপাশি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে চেকপোস্ট স্থাপন করে নিরাপত্তা নিশ্চিতের কথা জানিয়েছে তারা। উচ্চশিক্ষার গুরুত্বপূর্ণ ধাপে ভর্তি পরীক্ষা দিতে সিলেটে এসে কেউ যেনো কোনো ধরনের হয়রানির শিকার না হন এমন প্রত্যাশা পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের।

১০ পয়েন্টে থাকবে ১৫০টি মোটরসাইকেল :

শুক্রবার বিকেলে নগরীর চৌহাট্টা পয়েন্টে অনুষ্ঠিক এক দিকনির্দেশনামূলক সভায় এসব তথ্য জানিয়েছেন বুস্টার্স ও সিলেট বাইকিং কমিউনিটির সদস্যরা। বুস্টার এর এডমিন রাজীব কুমার রায়ের সভাপতিত্বে ও শহীদ জামানের পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) জ্যোতির্ময় সরকার। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ও বক্তব্য দেন, সিলেট মহানগর পুলিশের (ট্রাফিক) সার্জেন্ট ফাহাদ মোহাম্মদ, বুস্টার এর সদস্য রশিদ আহমদ, নুপুর দেব, জাহাঙ্গীর আলম, গোলাম রাব্বি, সাদিক রহমান, কামরান হোসাইন, ফজলে রাব্বি রাহাত, শোয়েব আহমদ, পান্ডব রায়, পারভেজ প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে জ্যোতির্ময় সরকার বাইকারদের উদ্দেশে বলেন, এমন উদ্যোগ সারা দেশে ব্যপক সাড়া ফেলেছে। সারা দেশের মানুষ আপনাদের প্রশংসা করছে। আপনাদের এই মহতি উদ্যোগে যাতে কোনো দুষ্কৃতিকারী ঢুকতে না পারে সেদিকে নজর রাখবেন। পরীক্ষার্থীদের নিরাপদে কেন্দ্রে পৌঁছে দিতে অবশ্যই সাবধানে গাড়ি চালাবেন। নিজের রেইনকোটের সাথে একটা অতিরিক্ত রেইনকোট নিয়ে আসবেন।

এ সময় তিনি বাইকারদের বিভিন্ন দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট ও স্বেচ্ছাসেবীদের নাম ও নাম্বার হল, সুবিদবাজার পয়েন্টে স্বেচ্ছাসেবী সাগর আহমেদ ০১৭১০৫৬১৩৩৭, আব্দুল্লাহ আল মামুন ০১৭৪৫৯০৪৭৯১, চৌহাট্টা পয়েন্টে নুপুর দে- ০১৭৬৩৮০৩৯০০, পারভেজ- ০১৮৩৭৮৪৪১৭৯, মদিনা মার্কেট পয়েন্টে আফজাল নাঈম-০১৭৬৫৬৫৯০৯৩, পান্ডব ০১৭৩০০০৬০৩৬, বন্দরবাজার পয়েন্টে রাজিব কুমার রায় ০১৭১৮৫১৩৭৯৫, রশীদ- ০১৭১১৯১১০৩৮, জিতু মিয়ার পয়েন্ট ও কাজীরবাজার ব্রিজে অনুপম ০১৭৩৩৫০০৪২৬, নাইওরপুল পয়েন্টে সুব্রত হাজরা ০১৭২১৪২৩৫৮৭, এমাদ- ০১৭১৯৬৯৮০৩১, টিলাগড় পয়েন্টে জাহাঙ্গীর আলম ০১৭২৮৩৪২৯৭৫, প্রমথ ০১৭৩৯৭১৬৮৬০, আম্বরখানা পয়েন্টে আরিফ ০১৭২০১৪৬৩৩৭, নুরুল করিম ০১৭২৩৮৬৬০৪৯, রিকাবীবাজার পয়েন্টে সাইফুল ০১৭১২০১০১১০ এবং মুস্তাফিজুর রহমান ০১৭১৪৪০২৫২৪ এর সাথে যোগাযোগ করলেই শিক্ষার্থীরা পেয়ে যাবেন মোটর সাইকেল। তাছাড়া এসবিসি’র ০১৭৩৪-০০৪৬৩৬, ০১৭১৭-০৯২৭৭৯, ০১৭১০-২১১২৭২ এবং ০১৭২৯৮৮১৬৩২ কন্ট্রোল রুমের নাম্বার সমূহে কল করে যেকোনো তথ্য জানতে পারবেন ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা।